ছাত্রীটি বুঝে হাওয়া

মোঃ মামুন মোল্যা

কি বুঝতে পেরেছে ছাত্রীটি?

সে কি বুঝতে পেরেছে? ধ্রুব নিশীথে যে লোকটির আগমন ঘটে;

সে লোকটি জননীর প্রণয়ী কিংবা স্বামী।

পাড়াতো মামা বোনের সাথে সন্তান বাদে থাকা কি ঠিক?

এই প্রশ্ন কি জেগেছে মনে?

বাবার চাকরির সুবাদে প্রসবিনী -মামা কালো কাব্যের জন্মদাতা।

জন্মদাতার ধন মাসের পর মাস,বছরের পর বছর, প্রসূতি -প্রেমিক আত্মসাৎ করছে?

গভীর তমঃ রজনীতে অর্থহীনে অমাবস্যা চলছে!

মেয়েটি কি লেখা -পড়া ছেড়ে সব শ্রবণ করছে?

বিদীর্ণ সৃজনকারিণী -জন্মদাতার প্রসূন।

মানুষ করার জন্য কি এতো কিছু?

জন্মদাতার এতো বিসর্জন;

তা লুটপাট করছে জন্মদাত্রী আর তার নাগর।

অম্বালিকা নিকট থেকে কি পেয়েছে?

পেয়েছে চতুষ্পাশ্র্বর লোকদের নিকট থেকে গুমোট -গুমোট বচন!

স্কুল বন্ধু বান্ধবীদের তাচ্ছিল্য;

যেখানে যায় অপকৃষ্ট বস্তু সে মাত্র!

লোকে ক্ষত স্থানে গুলের ছিটা, নুনের ছিটা মারছে যেটা হৃদয় বেদনাদায়ক!

তার জন্মদিনে কোন পার্টি হয় না কেনো?

বন্ধু বান্ধবীদের বাড়িতে নিমন্ত্রণ করলে কেনো আসতে চাই না?

বুঝবে যদি তবে এতো সব সয়েছে ছাত্রীটি কেনো?

বোধ হয় ছোট্ট ছিল! না হয় লেখা পড়া জন্য! না হয় অম্বালিকা দীপ্তি পাই নেকি?

সত্যি! ” সে অধিক ভালো মেয়ে ;
আমি তাকে উপলব্ধি করেছি!

কি করবার ছিল?

সত্যি কি সে সব বুঝতে পেরেছে?

হ্যাঁ, বুঝতে পেরেছে পরীক্ষার পর পরীক্ষা ঘর আঁধারে ভরেছে!
লেখা -পড়া হাবুডুবু!

আমি তাকে স্নেহ করি, ভালবাসি তার শত গুন কে! সে গুন ক্রমে ক্রমে হ্রাস পাচ্ছে, তবে কেনো?

সুবন্যা তুমি কি আমাদের ছেড়ে চলে যাবে?
হ্যাঁ স্যার! না স্যার! আমি কষ্ট পাবো তাই ”না” বলতনা!

আমি ভালবাসি! সকলে তোমাকে স্নেহ করবে! অনেক বড় মানুষ হবে তুমি!

“নিত্যদিন বদনটা নিষ্প্রভ দর্শনে; তুমি সুখী হবে অনেক সুখী!

মেঘ খসিয়ে যেন এক ঝলকা অরুণের মত কিছু সময়ের জন্য হাসিতো!

হঠাৎ এক দিন ছাত্রীটি মম কাছ থেকে হারিয়ে গেলো! কোথায় গেলো?

শেষ চিঠি হাতে! ছেড়ে এসেছি ঠিক!

প্রণয় রেখে এসেছি চিত্তক্ষোভের ভিড়ে!

প্রগাঢ় মনস্তাপ নিয়ে এসেছি স্যার! বড় হতে! অনেক বড়!

এতো বড় হব যে, দেশে বড় অমমোক্তারের মধ্যে এক জন।

দেশের বড় ব্যাধি পতি-স্ত্রী, সন্তান রেখে বিবাহ, পতি সন্তান থাকতে স্ত্রী ব্যভিচারিণী বিবাহ বন্ধন অনন্ত কালের জন্য করিব বন্ধ।

আপনার স্বপ্ন, আমার অভিলাষ পূরণে চলে এসেছি!

তাই স্নেহ আর ব্যভিচারিণী শঙ্গো ছেড়েছি!

মাফ করবেন! কিছু চাই না! সত্যি কিছু চাইনা কারণ প্রার্থনা দ্বার যে বন্ধ! শুধু চিত্তে রাখবেন!

দোয়া করবেন! অনেক বড় মানুষ হয়ে, সমাজের ক্যান্সার বিলীন করতে পারি!

ইতি আপনার আদরের চিরন্তন হাওয়া ছাত্রী!

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: Content is protected !!