মো আজিজুল
স্টাফ রিপোর্টর

আমি মুন এবং আমার বান্ধবী অনু— ভীষণ সখ করে হাতে বানানো কিছু পুঁথি,এ্যান্টিক ও অক্সিডাইজ গয়না নিয়ে কাজ করব বলে ঠিক করি।

প্রথমে আমরা নিজেদের প্রোফাইল থেকে পোস্ট করে কাজটার প্রাথমিক প্রচার করি।অতঃপর মানুষের বেশ ভালো সাড়া পাওয়ায় আমরা আমাদের একটা গ্রুপ এবং পেজ খোলার সিদ্ধান্তে উপনীত হই।

এখনও পর্যন্ত অনেক মানুষের দোয়া ও ভালোবাসায় আমাদের কাজটা নিজ গতিতে এগিয়ে চলেছে।
করোনার কঠোর পরিস্থিতি না হলে হয় হয়তো এর প্রসার আরও ঘটতে পারতো।
তবুও আশা করছি আগামীতে মনোহারিতা সবার অনেক প্রিয় অবস্থানে পৌঁছাতে সক্ষম হবে। এছাড়াও সক্ষম হবে অনেক কর্মহীন মানুষের অনলাইন কর্মসংস্থানের সুযোগ তৈরী করতে।

ডিজিটাল বাংলাদেশ বিনির্মাণে বাংলাদেশ অনেকদূর এগিয়ে গেছে বলতেই হয়। সরকারের জোরালো পদক্ষেপের ফলে বিগত কয়েক বছরে ডিজিটাল বা তথ্যপ্রযুক্তিনির্ভর প্রশাসন ব্যবস্থা, ব্যবসা-বাণিজ্য, কৃষি, স্বাস্থ্যসেবা, শিক্ষা, জনসেবাসহ বিভিন্ন খাতে উল্লেখযোগ্য উন্নয়ন লক্ষ করা যায়। বর্তমানে সারাদেশ ৪-জি নেটওয়ার্কের আওতায় প্রবেশ করেছে। সংবাদ মাধ্যমের বরাতে জানা যাচ্ছে যে, ২০১৯ সালের মধ্যে বাংলাদেশ ৫-জিও চালু করবে। ইতোমধ্যে সারাদেশে মোট ৫,২৭৫ টি ইউনিয়নকে ০ ইন্টারনেট নেটওয়ার্কের আওতাভুক্ত করা হয়েছে যা প্রান্তিক পর্যায়ের বৃহৎ জনগোষ্ঠীর নিকট জীবন ঘনিষ্ঠ নানাবিধ বিষয় যেমন- পরীক্ষার ফলাফল, কলেজ-বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তির তথ্য, চাকুরী বিষয়ক তথ্য, ইউটিলিটি বিল পরিশোধ, ই-মেইল যোগাযোগ, জন্ম-মৃত্যুর নিবন্ধন, মোবাইল ব্যাংকিংসহ বিবিধ সরকারি সেবা প্রদানে সহায়তা করছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: Content is protected !!