প্রথম সেশনে ব্যাকফুটে থাকা পাকিস্তান ঘুরে দাঁড়িয়েছে। দ্বিতীয় সেশনে হাফ সেঞ্চুরি তুলে নিয়েছেন বাবর আজম। ব্যাটে আছেন ৬০ রানে। অন্য পাশে আজহার আলি ব্যাট করছেন ৩৬ রানে।

২য় সেশনে খেলা হয় ২৬ ওভার। এ সময় পাকিস্তান সংগ্রহ করে ৮৩ রান। প্রথম সেশনে ৩১ ওভার খেলে পাকিস্তানের সংগ্রহ ছিল ৭৮ রান।

এর আগে শুরুতে দুর্বার গতিতে রান তুলছিল পাকিস্তান। ওপেনিং জুটিতে ১৮ ওভারে ৫৭ রান তুলে নেন আবিদ আলি ও আবদুল্লাহ শফিক। এর পরের ওভারেই বোল্ড করে শফিককে সাজঘরে ফেরান তাইজুল। পরে ২৫তম ওভারে আরেক ওপেনার আবিদ আলিকেও সাজঘরে ফেরান তাইজুল।

মিরপুর শেরে বাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে সিরিজের দ্বিতীয় ও শেষ টেস্টে পাকিস্তানের কাছে টসে হেরে ফিল্ডিংয়ে যায় বাংলাদেশ। পাকিস্তান টস জিতে প্রথমে ব্যাট করার সিদ্ধান্ত নেয়। ম্যাচটি শুরু হয় সকাল ১০টায়।

২য় টেস্টে অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসানের প্রত্যাবর্তনে উজ্জীবিত টাইগাররা। হ্যামস্ট্রিং ইনজুরির কারণে পাকিস্তানের বিপক্ষে তিন ম্যাচের টি-টোয়েন্টি সিরিজ ও প্রথম টেস্টে খেলতে পারেননি সাকিব। সর্বশেষ টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে ইনজুরিতে পড়েন তিনি। সাকিবের অনুপস্থিতিতে সবগুলো ম্যাচই হারে বাংলাদেশ।

এ ম্যাচে পাকিস্তান জয় পেলে ঘরের মাঠে হোয়াইটওয়াশ হবে বাংলাদেশ।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

error: Content is protected !!